Sponser

চিম্বুকের মুরং পাড়া, ২০০৯

ভ্রমণ
PUBLISHED: May 31, 2021

চিম্বুকের মুরং পাড়া, ২০০৯সাধারণত পর্যটকেরা চিম্বুক পাহাড়ে আসে বান্দরবান থেকে। তবে আমাদের যাত্রাটা হল রুমা থেকে। রুমা কেন এসেছিলাম? এখানকার প্রাকৃতিক দৃশ্য আর রিজুক জলপ্রপাত দেখতে। তবে সে অন্য গল্প।

আগে রুমা বাজার থেকেই চান্দের গাড়ি পাওয়া যেত। নতুন রাস্তা হওয়ায় এখনো পাওয়া যায়। তবে যখনকার কথা বলছি, মানে ২০০৯ এ, মাঝখানে একটা সেতু ধ্বসে পড়ায় নৌকায় চেপে একটু সামনে এগিয়ে তবেই উঠতে হতো গাড়িতে। একটা নৌকায় চড়ে বসলাম দুজন।রাতের আলসেমি ঝেরে ফেলে আবার ব্যস্ত হয়ে উঠেছে রুমা ঘাট। নৌকা, মানুষের ভীড়-বাট্টা বাড়ছে ক্রমেই। মারমা, বম নারীরা দিনের শুরুতেই ধোঁয়া-মোছার কাজটা সেরে নিচ্ছেন। দুই পাশের পাহাড়ের মাঝখান দিয়ে বয়ে চলা সাঙ্গু বড্ড শান্ত, হয়তোবা কিছুটা শ্রীহীনও। তার সত্যিকারের রুপ দেখতে চাইলে আসতে হবে বর্ষায়। পাহাড়ি ঢলে খরস্রোতা, উদ্যাম সাঙ্গুকে তখন দেখবেন তার বন্য রুপে। নৌকায় আলাপ এক হাসি-খুশি বম তরুণীর সঙ্গে। নদীর ওপাড়ে মটর সাইকেল নিয়ে অপেক্ষায় আছেন পতি। চাকরি সূত্রে ভদ্রলোক থাকেন বান্দরবান শহরে। স্ত্রী আর ছোট বাচ্চাটাকে নিয়ে যেতে এসেছেন। তরুণীটির পাশে বসা বাচ্চাটার দুষ্টুমির অন্ত নেই। কথা খুব একটা বলতে না পারলেও আকারে-ইংগিতে পুুশিয়ে দিচ্ছে। পাশ দিয়েই চলে যাচ্ছে একটার পর একটা বাঁশের ভেলা। এখাবে ভেলা বানিয়ে নদীর স্রোতে ভাসিয়ে নিয়ে যাওয়া হয় দূর-দূরান্তে। তীরে ভীড়ল নৌকা । সঙ্গী রিদওয়ান আক্রাম সহ চেপে বসলাম অপেক্ষামান একটি চান্দের গাড়িতে।

প্রহরী কুকুরগুলোর প্রতিবাদ অগ্রাহ্য করে ঢুকে পড়লাম পাড়ায়। উপর থেকেই দেখেছিলাম বেশ বড় একটা জায়গা নিয়ে শাখা-প্রশাখা বিস্তার করেছে পাড়াটি। প্রায় প্রতিটি বাড়িই মাচার উপর। বাঁশের বেড়ার বাড়ির সামনেই বারান্দা। মাচা, বারান্দা, জানালা মিলিয়ে আশ্চর্য সুন্দর এই ঘরগুলো। ছোট ছেলে-মেয়েরা খেলা করছে বাইরে। আমাদের দেখে আগ্রহী হয়ে কাছে এলো কেউ কেউ। কোনো কোনো বাড়ির জানালা গলে দেখা যাচ্ছে কিশোরীর মুখ, কারো কোলে বাচ্চা। আমাদের দেখে মুখ লুকাল। বার বার ডেকেও আর জানালার সামনে আনা গেল না। এমনিতেই বেশ লাজুক মুরংরা। তা ছাড়া পর্যটকদের যন্ত্রণাতো আছেই। এখন পাহাড়ের বিভিন্ন জাতির লোকেরা পড়ালেখায় বেশ উৎসাহিত হয়ে উঠলেও যখনকার কথা বলছি তখন এই মুরং পাড়ায় শিক্ষা তার আলো ছড়াতে পেরেছে কমই। অনেক ছেলে-মেয়েই স্কুলে যায় না।পাড়ায় শুকরের পাল নজর কাড়ল। অবশ্য মুরং, মারমা, বমদের পাড়াগুলোতে এটা স্বাভাবিক চিত্র। পার্বত্য চট্টগ্রামের অনেক রাস্তা ধরে যাওয়ার সময় হঠাৎ দেখতে পারেন নাদুস-নুদুস শুকর ছানা গদাই-লস্করি চালে হেঁটে পেরোচ্ছে রাস্তা। যা হোক এই দলটিতে বাচ্চা যেমন আছে তেমনি আছে বিশালাকায় ধারিও। দিবানিদ্রায় ব্যাঘাত ঘটায় কোনো কোনোটি বিরক্তি নিয়ে তাকাচ্ছে আমাদের দিকে।মুরং বা ম্রোদের কথা শুনেছিলাম বহু আগেই, তাদের দেখেছিও বান্দরবানের পথে ঘাটে। তবে পাড়া ভ্রমণ এটাই প্রথম। ওদের গো হত্যা উৎসটা সবসময়ই ভারি আকৃষ্ট করে আমাকে। জুমের ফসল ঘরে তোলার সময় এটা পালন করে তারা। একটা গরুকে খুঁচিয়ে খুঁচিয়ে মারা হয়। আপাতদৃষ্টিতে বর্বর এক নিয়ম মনে হলেও মুরংদের একটা কাহিনি আছে এই উৎসব পালন নিয়ে। তাদের ভাষায় সৃষ্টিকর্তা হলো থুরাই। মুরং কিংবদন্তি, এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে থুরাই সব জাতির লোকদের ধর্মগ্রন্থ দেওয়ার কথা। কিন্তু জুমের ফসল তোলার ব্যস্থতায় অনুষ্ঠানটিতে সময় মতো হাজির হতে ব্যার্থ হোন ম্রো দলপতি। অতএব কলাপাতায় লেখা ধর্মগ্রন্থ থুরাই পাঠান এক গরুকে দিয়ে। পথে ক্ষুধা-তৃষ্ণায় ক্লান্ত গরু কলাপাতাটাই খেয়ে ফেলল। ম্রোদের কাছে হাজির হয় ধর্মগ্রন্থ ছাড়া। তাই গরুর ওপর এতো রাগ মুরংদের। এ কারণেই তাদের গো হত্যা দিবস পালন।

পাড়ায় ঘুরে বেড়াতে লাগলাম। মহিলারা ঘরের কাজে ব্যস্ত। কয়েকজন বাড়ির সামনের আঙিনায় তাদের স্বাভাবিক পোশাকেই কাজ করছে। পুরুষেরা গেছে পাহাড়ে। যে কয়েকজনের দেখা পেলাম, তারা কথা বলল আন্তরিকতার সঙ্গে। মুখে বহুভাজ এক বৃদ্ধ ঘরের সামনে বসে ধূমপান করছে। বাঘ, চিতার খবর জানতে চাইলাম তাঁর কাছে। আধ বাংলায় যা বলল তার মর্ম উদ্ধার করতে পারলাম, আগে পাড়ের আশপাশেই ছিল, এখন নেই। তারপর হাতের ইশারায় মিয়ানমারের দিকে চলে যাওয়া পাহাড় সারি দেখিয়ে বুঝাল ওদিকে আছে এখনো। ইতিমধ্যে পাড়ার শিশুদের সঙ্গে ভাব জমে গেছে। যেদিকেই যাচ্ছি সঙ্গ দিচ্ছে। ইচ্ছে ছিল আরো কিছুক্ষণ থাকব। কিন্তু বাধ সাধল ভ্যাপসা গরম আর চিম্বুক দেখে তাড়াতাড়ি বান্দরবান যাওয়ার তাগিদ।ফিরতি পথে সেনাসদস্যদের ক্যান্টিন পেছনে ফেলে এলাম উঁচু একটা পাহাড়ের সামনে। পাহাড়ের গায়ে পায়ে-চলা পথ ধরে ওপরে উঠতেই পেলাম একটা কাঠ-বাঁশের রেস্ট হাউজ। আমরা এখন সাগর সমতল থেকে প্রায় ২৫০০ ফুট ওপরে, চিম্বুকের চূড়ায়। ভেবেছিলাম এখান থেকে নীচের পাহাড় সারি ধরা দেবে তার মোহনীয় রুপে। কিন্তু পোড়া কপাল, মেঘের কারণে চোখে পড়ল না কিছুই। যত দূর চোখ যায় কেবল ধোয়াটে সাদার অবাধ বিস্তার। পাড়ার মতো এখানেও ক্যামেরা নিয়ে ব্যস্ত হলো রিদওয়ান@Ridwan Akram। লেখার সঙ্গে দেওয়া ছবিগুলো তার তোলা।চিম্বুকের আরো পুরনো গল্প শুনেছিলাম বন বিভাগের চাকুরে মাহফুজ মামার কাছ থেকে। সেই ১৯৯২ সালে তাঁর পোস্টিং ছিল বান্দরবানে। তখন বান্দরবান থেকে মোটামুটি চিম্বুক পর্যন্ত রাস্তা তৈরি হয়েছে। তাও কোথাও পাকা, কোথাও লাল ইট বিছানো। এর পরের পথের কাজ চলছিল। বান্দরবান থেকে নৌ পথে থানচি যেতে লাগত দুই দিন। ওয়াই জংশন থেকে যে পথটা এখন চিম্বুকের আগে রুমার দিকে গিয়েছে, সেটা ছিল কুক্ষিংঝিরি পর্যন্ত। পান্না মামিকে নিয়েও নাকি এসেছিলেন চিম্বুকে। বললেন বাঁশ-কাঠের একটা রেস্ট হাউজ ছিল, ওটাই সম্ভবত দেখেছি আমরা।তখন সেগুন বাগানের কাজ চলছিল চিম্বুকের আশপাশে। কখনো কখনো মুরংরা বাইসন বা বন গরু শিকার করার খবর পেতেন। হরিণ, শুকরের তো মোটামুটি লেখাজোখা ছিল না। বললেন চিম্বুকের আশপাশে এমনকী চিতা বাঘও ছিল। আহ্ সেই সময়, ভাবি কেন পৃথিবীতে এতোটা দেরিতে এলাম!চিম্বুকের ওপর দাঁড়িয়ে থাকি অনেকটা সময়, ধোঁয়াটে মেঘের আড়াল থেকে হালকা আভাস মেলে পাহাড়সারির। তারপর নেমে এলাম চিম্বুক থেকে। থানচি থেকে আসা হুড খোলা একটা জিপে কয়েকজন যাত্রী ছিল। আমরাও উঠে পড়লাম । চিম্বুককে পেছনে ফেলে বান্দরবানের দিকে রওয়ানা হল গাড়ি। গত দুদিন ঘুম হয় নি খুব একটা। আর তাই দূরে মেঘের মধ্যে আবছা ভাবে দেখা দেয়া পাহাড়, পাহাড়ের গায়ে হঠাৎ হঠাৎ পাহাড়বাসীদের বাড়ি-এসব দেখতে দেখতে কখন যেন বুজে এল চোখের পাতা…।এরপরও অনেকবারই গিয়েছি চিম্বুকে। তবে মুরং পাড়ায় ঢু মারা হয় নি আর। পাহাড়ের ওপরের পুরনো রেস্ট হাউজের জায়গায় দেখেছি নতুন দালান উঠেছে। বসবার ও ছবি তোলার ব্যবস্থা হয়েছে পর্যটকদের জন্য, ভেতরে ঢুকতে কাটতে হচ্ছে টিকিটও। পর্যটকে ঠাসা অধুনা বান্দরবান নিয়ে লেখার ইচ্ছা আছে ভবিষ্যতে। চিম্বুক নিয়ে যখন লেখা, তখন একটি কথা বলতেই হয়, পত্রিকায় পড়লাম চিম্বুকের পাহাড়রাজ্যের এক পাহাড়ের ওপর বানানো হবে পর্যটনকেন্দ্র, পাঁচ তারকা হোটেল। একটা দেশের উন্নতির জন্য পর্যটনের বিকাশ অনেকই জরুরি। একই সঙ্গে, দেখতে হবে এখানকার মুরংরা যেন ক্ষাতিগ্রস্থ না হয় কোনোভাবেই, তাদের কোনো অভিযোগ থাকলে যাচাই করা হোক তা, তেমনি প্রকৃতি ও পরিবেশের সঙ্গে যেন অবকাঠামো থেকে শুরু করে পর্যটনের সব কিছু মানানসই হয়। সব কথার শেষ কথা, বন-পাহাড়ে গিয়ে পরিচ্ছন্ন রাখুন ওখানকার পরিবেশ।

Recommended For You

19 thoughts on “চিম্বুকের মুরং পাড়া, ২০০৯

  1. eduffloh says:

    normal dosage of cialis [url=https://rcialisgl.com/ ]how long does 20mg of cialis last[/url] purchase generic cialis

  2. ZoraSwa says:

    viagra cialis [url=https://ckacialis.com/ ]cialis drug plan[/url] cialis from india

  3. eduffVed says:

    cialis substitute over the counter [url=https://krocialis.com/ ]when will cialis generic be available[/url] viagra or cialis or levitra trial

  4. spaliAni says:

    Florinef [url=https://pharmacyken.com/ ]no 1 canadian pharmacy[/url] walmart pharmacy store locator

  5. spaliGtv says:

    apply for cvs pharmacy online [url=https://pharmacyhrn.com/ ]canadian pharmacy lakeland[/url] canadian drug pharmacy viagra

  6. quodsAsd says:

    cheapest generic cialis australia [url=https://cialisjla.com/ ]toronto buy cialis[/url] cialis recreational use

  7. spaliHtf says:

    cialis for sale [url=https://cialishav.com/ ]active ingredient cialis[/url] cialis black 800mg reviews

  8. spaliDev says:

    canadian pharmacies store safe to use [url=https://cjepharmacy.com/ ]ritalin online pharmacy[/url] Duricef

  9. eduffloh says:

    cialis tolerance [url=https://rcialisgl.com/ ]how much is cialis 5mg[/url] what company makes cialis

  10. spaliAni says:

    how to report someone selling prescription drugs [url=https://pharmacyken.com/ ]antibacterial[/url] online pharmacy c o d

  11. eduffVed says:

    cialis with dapoxetine online [url=https://krocialis.com/ ]cialis wiki[/url] how much does 20mg cialis cost

  12. ZoraSwa says:

    can i buy cialis without prescription pay pal [url=https://ckacialis.com/ ]when cialis patent expires[/url] buy cialis with paypal payment

  13. spaliGtv says:

    www canadian pharmacy com [url=https://pharmacyhrn.com/ ]can you use target pharmacy rewards online[/url] Zoloft

  14. spaliHtf says:

    active ingredient cialis [url=https://cialishav.com/ ]cialis addiction[/url] cialis for daily use reviews

  15. ZoraSwa says:

    viagra no prescription cialis [url=https://ckacialis.com/ ]generic cialis cipla[/url] cialis brand

  16. quodsAsd says:

    cialis australia [url=https://cialisjla.com/ ]cialis coupon[/url] puchsae cialis

  17. spaliDev says:

    online pharmacy tech programs [url=https://cjepharmacy.com/ ]canadian pharmacy companies[/url] is it legal to buy drugs from canada online

  18. spaliAni says:

    cipa certified canadian pharmacies [url=https://pharmacyken.com/ ]best online canadian pharmacy[/url] buy pain pills online pharmacy

  19. quodsAsd says:

    discount super active cialis [url=https://cialisjla.com/ ]how can i get cheaper cialis[/url] cialis overnight online

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *